Best Poem of Bharatchandra Ray

অন্নদার ভবানন্দ ভবনে যাত্রা
অন্নপূর্ণা উত্তরিলা গাঙ্গিনীর তীরে |
পার কর বলিয়া ডাকিলা পাটনীরে ||
সেই ঘাটে খেয়া দেয় ঈশ্বরী পাটনী |
ত্বরায় আনিল নৌকা বামাস্বর শুনি ||
ঈশ্বরীরে জিজ্ঞাসিল ঈশ্বরী পাটনী |
একা দেখি কুলবধূ কে বট আপনি ||
পরিচয় না দিলে করিতে না পরি পার |
ভয়করি কি জানি কে দেবে ফেরফার ||
ঈশ্বরীরে পরিচয় কহেন ঈশ্বরী |
বুঝহ ঈশ্বরী আমি পরিচয় করি ||
বিশেষণে সবিশেষ কহিবারে পারি |
জানহ স্বামীর নাম নাহি ধরে নারী ||
গোত্রের প্রধান পিতা মুখবংশজাত |
পরমকুলীন স্বামী বন্দ্যবংশখ্যাত ||
পিতামহ দিলা মোরে অন্নপূর্ণা নাম |
অনেকের পতি তেঁই পতি মোর বাম ||
অতি বড় বৃদ্ধ পতি সিদ্ধিতে নিপূণ |
কোন গুণ নাহি তাঁর কপালে আগুন ||
কুকথায় পঞ্চমুখ কণ্ঠভরা বিষ |
কেবল আমার সঙ্গে দ্বন্দ্ব অহর্নিশ ||
গঙ্গা নামে সতা তার তরঙ্গ এমনি |
জীবনস্বর . . .
Read the full of অন্নদার ভবানন্দ ভবনে যাত্রা
রতি বিলাপ
পতি শোকে রতি কাঁদে বিনাইয়া নানা ছাঁদে
ভাসে চক্ষু জলের তরঙ্গে |
কপালে কঙ্কণ মারে রুধির বহিছে ধারে
কাম-অঙ্গ ভস্ম লেপে অঙ্গে ||
আলু-খালু কেশ-বাস ঘন ঘন বহে শ্বাস
সংসার পূরিল হাহাকার |
কোথা গেল প্রাণনাথ আমারে কর সাথ
তোমা বিনা সকলি আঁধার ||
তুমি কাম আমি রতি আমি নারী তুমি পতি
দুই অঙ্গ একই পরাণ |
প্রথমে যে প্রীতি ছিল শেষে তাহা না রহিল
পিরীতির এ নহে বিধান ||
না দেখিব সে বদন না হেরিব সে নয়ন
না শুনিব সে মধুর বাণী |
আগে মরিবেন স্বামী পশ্চাতে মরিব আমি
এত দিন ইহা নাহি জানি || . . .
Read the full of রতি বিলাপ